করোনা: সংখ্যা ১৯ পবিত্র কোরআনের অলৌকিকত্ব

ডাঃ আনম নৌশাদ খান: সুরা ৭৪ আল-মুদ্দাসসির এর ৩০ নং আয়াত—এর উপর নিয়োজিত আছে উনিশ জন ফেরেশতা ।বিস্তারিত ব্যাখ্যা ফি জিলালিল কোরআনে ।সারসংক্ষেপ—দোজখের দায়িত্বে আছেন উনিশ জন ফেরেশতা । তাদের সংখ্যা কাফেরদের পরীক্ষার বিষয় হিসাবে নির্ধারণ করা হয়েছে ।এটা অদৃশ্য বিষয় ।এর জ্ঞান এবং কেন উনিশজন আল্লাহ ভাল জানেন ।আল্লাহ সমস্ত সৃষ্টি জগতের সমন্বয় ও শৃঙ্খলা বিধান করেন এবং সকল জিনিসকে নির্দিষ্ট পরিমানে সৃষ্টি করেন ।

অবিশ্বাসীরা -সংখ্যা উল্লেখ করা মাত্রই তাদের মনে তর্কের স্পৃহা তৈরী করে ।নির্বিবাদে মেনে নেয় না ।কিন্তু মোমেনরা তৎক্ষনাত মেনে নেয় -তাদের ঈমান বৃদ্ধি পায় ও মযবুত হয় ।এই সংখ্যা নির্ধারণের উদ্দেশ্য যে অন্য কেতাবধারীদেরও বিশ্বাস যেন মযবুত হয় ,মোমেনদের পাশাপাশি ।কেতাবধারীরা যখন কোরআন থেকে এ তথ্য জানবে , তখন নিশ্চিত হতে পারবে যে কোরআন তাদের পূর্বে প্রাপ্ত আসমানী কিতাবের সমর্থক ।কারন ইহুদি ও খৃষ্টানদে ধর্ম গ্রন্হে এই উনিশজন ফেরেশতার কথা বলা আছে ।
পক্ষান্তরে মানসিক ব্যাধিগ্রস্হ লোকেরা ও কাফেলরা বলে -আল্লাহ এর দ্বারা কি উদাহরণ দিতে চান ? এরাই এরকম প্রশ্ন আরও করেন- আসমান ৭টি কেন ,মানুষ মাটি থেকে আর জিন আগুন থেকে কেন ? এইভাবে একই সত্য বিভিন্ন রকমের মানুষের অন্তরে বিভিন্ন রকমের প্রভাব বিস্তার করে ।কেউ মোমেন হয় ,কেউ কাফের ও মোনাফেক হয় ।তারা নিগুর তত্ব জানতে পারবে না ।আর প্রত্যেক সৃষ্টিতে আল্লাহর যে মহৎ উদ্দেশ্য রয়েছে তারা তা স্বীকার করে না ।এমনিভাবে আল্লাহ যাতে ইচ্ছা গোমরা করেন ও যাতে ইচ্ছা হেদায়েত দেন।

মিশরের প্রকৌশলী রশীদ খলিফা কম্পিউটারে ১৯ এর অলৌকিক তাৎপর্য তুলে ধরেন ।
১: বিসমিললাহির রহমানির রাহিম -এ আরবী বাক্যে ১৯টি অক্ষর আছে ।
২: আরবী আল্লাহ শব্দটি সমস্ত কোরআনে ২৬৯৮ বার আছে যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।
৩:রহমান শব্দটি আছে ৫৭ বার যা ১৯ বিভাজ্য ।
৪:রাহীম শব্দটি আছে ১১৪ বার যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।
৫:কোরআনে মোট ১১৪ টি সুরা আছে যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।
৬:বিসমিললাহির রহমানির রাহিম মোট ১১৪ বার এসেছে -১১৩টি সুরার আগে বিসমিললাহ আছে কিন্তু সুরা তওবার আগে বিসমিললাহ নাই ।তৎপরিবরতে সুরা নমলে বিসমিললাহ দুইবার ব্যবহার হয়েছে ।ফলে ১১৪ বার ব্যাবহদ্ত হলো -যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।
৭:সুরা কাফে(৫০ সুরা) কাফ অক্ষরটি ৫৭ বার ব্যবহার হয়েছে যা ১৯ দ্বারা বিভাজ্য ।এরকম আরও তথ্য আছে miracle of 19 by Dr Sabur Ally দেখতে পারেন ।

কোরআন কেউ বিকৃত করার চেষ্টা করলে গানিতিক ফরমুলায় ধরা পড়বে।যেমন মীরজা গোলাম আহমদ নিজেকে ইমাম মেহেদী দাবী করেছিল ও শেষ নবী দাবী করে কোরআন ইনটারপ্রেট করতে চেয়েছিল -যা এই ফরমুলায় ধরা পড়তো ।ভবিষ্যতেও এরকম চেষ্টা সফল হবে না।তাছাড়া হাজার হাজার হাফেজের Brain থেকে মুছা যাবে না।অন্য কোন ধর্মে হাফেজ নাই ।এর সুরক্ষা সম্পর্কে ,সুরা হিজরের ৯ আয়াতে বলা হয়েছে -আমি স্বয়ং এ উপদেশ গ্রন্হ অবতীর্ন করেছি এবং আমি নিজেই এর সংরক্ষক ।আল্লাহ তা আলার জন্যই এই কোরআন অক্ষত থাকবে ।১৯এর এই অলৌকিকত্ব তৈরী করা কোন মানুষের পক্ষে সম্ভব নয় ।আমাদের মহানবী ছিলেন নিরক্ষর ।কোরআনের অলৌকিকত্ব মোমেনের ঈমান অবশ্যই বৃদ্ধি করবে -কাফেরকে করবে বিভ্রান্ত ।
বটম লাইন——-
Covid19 —১২০ নিনোটারের জীবানু পৃথিবীকে তচনচ করে দিচ্ছে ।কি অলৌকিক শক্তি ।জানিনা অন্তরনিহিত রহস্য সৃষ্টিকরতাই ভাল জানেন ।কিন্তু কি দারুন coincidence ।২০১৯ সালেরশেষ মাসে ধরা পড়লো -তা না হলে covid20 লেখা হতো ।এই ১৯ সংখ্যা থাকাতেই কি জীবানুরও অলৌকিক ক্ষমতা ।অনেক চিন্তার খোরাক দেবে- তবে জীবন যে শেষ হবে বা হয়ে যাচ্ছে এতে তো কোন সন্দেহ নাই ।সুরা ইয়াসিন এর ৩১-তারা কি প্রত্যক্ষ করে না ,তাদের পুর্বে আমি কত সম্প্রদায়কে ধ্বংস করেছি যে, তারা তাদের মধ্যে আর ফিরে আসবে না । ৩২:ওদের সবাইকে সমবেত অবস্হায় আমার দরবারে উপস্তিত হতেই হবে ।

লেখক: ডাঃ আ.ন.ম নৌশাদ খান

অধ্যক্ষ, প্রেসিডেন্ট আবদুল হামিদ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

আরও পড়ুন

Leave a Comment